19 শে ডিসেম্বর 20, থ্যালাসিমিয়া পেশেন্টের নাম :- দেবলীনা পন্ডিত। কালনা , পূর্ব বর্ধমান । ব্লাড গ্রুপ A পজেটিভ .। কালনা হসপিটালে ভর্তি হয়েছে, কিন্তু কালনা ব্লাড ব্যাংকে A পজেটিভ ব্লাড প্রোভাইড হয়নি এবং ডোনারের দরকার।

অতিসত্বর কালনা হসপিটালের স্বাস্থ্যকর্মী পার্থ কুন্ডু সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেন এবং ডোনারের ব্যবস্থা করে দেন। বারবার একই কথা আমি বলি_ বিশ্বজুড়ে রক্ত সংকট , কোভিড ১৯ আবহে রাজ্য জুড়ে রক্ত সংকট। রক্ত সংকট একদিনের কাহিনী নয়। কারণ বর্তমান অবস্থাতে করোনা ভাইরাসের ভয়ে রক্তদান করাটা যে মহৎ কাজ, এটি অবলুপ্ত হয়ে গেছে মানুষের মন থেকে। তাই বলে কি কেউ দিচ্ছে না? রক্ত দান করা মানুষের সংখ্যা খুব কম।

মানুষের ইচ্ছার বিরুদ্ধে চাপ দিয়ে রক্ত সংগ্রহ করা যায় না। যদি নিয়ম থাকত, রক্ত না দিলেই , রক্ত পাওয়া যাবে না। সে জায়গায় কোন অসুবিধে থাকতো না। এটা ব্যক্তিবিশেষের সমস্যা নয়, সমগ্র দেশের সমস্যা। কালনা ব্লাড ব্যাংক এর স্টাফ এবং সুপার, অ্যাসিস্ট্যান্ট সুপার ও ব্লাড ব্যাংকের মেডিকেল অফিসার্ খুবই পেশেন্টের সাথে সহযোগিতা করেন।

কিন্তু কালনা সুপার ফেসিলিটি হসপিটাল আপ্রাণ চেষ্টা করছে, তবুও কিছু সমস্যা থাকতেই পারে। তার মধ্যে সামান্য ধৈর্য, সৌজন্যবোধ বিবেকবোধের উপর বিচার করে, ব্লাড ব্যাংকের উপর চাপ সৃষ্টি না করে, পেসেন্ট পাটিদের সহযোগিতা করা দরকার ।

বর্তমানে ব্লাড কার্ডএর দরকার নেই ,ডোনারের প্রয়োজন । ব্লাড ব্যাংক কোথায় রক্ত পাবে ? তবে বর্তমান পরিস্থিতিকে অমান্য করা যায় না।

আশা করছি, এবং আমার সম্পূর্ণ বিশ্বাস আগামী দিনে এমন সমস্যা আসবে না। আর আপনাদের কাছে অনুরোধ করছি, স্বেচ্ছায় রক্তদান করুন । রক্ত সম্বন্ধে আমরা যদি সচেতন হই, তবে রক্তের অভাব হবে না।

কায়মনোবাক্যে শপথ নিন যে , আমি রক্ত দিয়েই রক্ত সংগ্রহ করবো। তা হলে রক্ত সংকট থাকবে না।

জয় হিন্দ।

Published by Sub-Mejar Nareshchandra Das

Sub Major Nareshchandra Das, retired military personal, Social Worker , Lecturer for Thalassemia disease. whatsApp no. 8972084560