একচাকা সিদ্ধেশ্বরী ক্লাব থ্যালাসেমিয়া মুক্ত পরিবার গঠনের পরিকল্পনা নিয়েছে।

আর থ্যালাসেমিয়া নয়। এই উদ্যোগ নিয়ে একচাকা সিদ্ধেশ্বরী ক্লাব থ্যালাসেমিয়া মুক্ত পরিবার গঠনের পরিকল্পনা নিয়েছে।
কিন্তু লকডাউন আর করোনাভাইরাস এর তাণ্ডবে সবকিছুই থমকে গেছে। কিন্তু আশার প্রদীপ নেভেনি, আগামী দিনে এক নতুন উদ্যমের সাথে, নতুন প্রচেষ্টার সাথে, নতুন প্রেরণা সাথে, আপনাদের প্রত্যেক স্কুলে সরকারি ব্যবস্থাপনায় থ্যালাসেমিয়া পরীক্ষা শুরু হবে।
কালনা sub-division হসপিটালে থ্যালাসেমিয়া কন্ট্রোল ইউনিট খোলা আছে।
কিন্তু করোনাভাইরাস, লকডাউন, covid-19 চিকিৎসার ব্যস্ততায় থ্যালাসেমিয়া ইউনিটের যে সমস্ত টেকনিক্যাল মেশিন এবং মেন পাওয়ার দরকার ছিল , সেগুলো এখনও পর্যন্ত স্বাস্থ্য ভবন থেকে পাওয়া যায়নি।
আমরা আশা করতে পারি, এবং কালনা সাব ডিভিশন হসপিটালের সুপার কে অনুরোধ করেছি, যত তাড়াতাড়ি সম্ভব থ্যালাসেমিয়া কন্ট্রোল ইউনিট সম্পূর্ণভাবে থ্যালাসেমিয়া রোগীদের প্রতি চিকিৎসার প্রোভাইড করা অত্যন্ত প্রয়োজন।

থ্যালাসেমিয়া সম্বন্ধে বলছি_ থ্যালাসেমিয়া #একটি জন্মগত, বংশগত রক্তের রোগ, এটি সংক্রামক নয়।
#থ্যালাসেমিয়া বাহক এই রোগের জিন বহন করে , যখন স্বামী-স্ত্রী দুজনেই থ্যালাসেমিয়া বাহক হয় তখন একজন থ্যালাসেমিয়া শিশু জন্মানোর সম্ভাবনা থাকে।
# থ্যালাসেমিয়া বাহক সম্পূর্ণ সুস্থ। বাহক নির্ণয়ে ভয় পাবেন না।
#আপনি থালাসেমিয়া বাহক না হলে নির্ভয়ে একজন বাহককে বিবাহ করতে পারেন। এক্ষেত্রে থ্যালাসেমিয়া শিশু জন্মানোর কোন সম্ভাবনা নেই।
#যদি একজন গর্ভবতী মহিলা তাহলে গর্ভস্থ অবস্থায় শিশুর থ্যালাসেমিয়া আছে কিনা পরীক্ষা করা যায়।
# বিয়ের আগে কুষ্টি বিচার নয়। রক্ত পরীক্ষা করে জেনে নিন আপনি থালাসেমিয়া বাহক না কিনা।
# পশ্চিমবঙ্গে লোকসংখ্যার 10% বাহক ।
#যদি আমরা থালাসেমিয়া প্রতিরোধ করতে না পারি তাহলে ভবিষ্যতে প্রতি পাঁচজন শিশুর মধ্যে একজন থ্যালাসেমিয়া নিয়ে জন্মাবে।
# একজন থ্যালাসেমিয়া বাহক স্বাভাবিক লোককে রক্ত দিতে পারে।

জয় হিন্দ

1 Comment

Comments are closed.